তানিয়া বন্দ্যোপাধ্যায় পাল ● কলকাতা

করোনা অতিমারি সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলছে ফুসফুসের উপরে। আর কলকাতাবাসীর ফুসফুস অকেজো হওয়ার প্রবণতা চিন্তা বাড়াচ্ছে। কলকাতার পালমনোলজিস্টদের একাংশ জানাচ্ছেন, শেষ কয়েক মাসে ফুসফুসের অসুখের পুরোনো ইতিহাস না থাকলেও করোনা আক্রান্তের ফুসফুস অকেজো হওয়ার ঘটনা বেশ চোখে পড়ার মতো। যা এই অতিমারির পরিস্থিতিতে বাড়তি উদ্বেগ তৈরি করছে।

আনন্দপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালের পালমনোলজিস্ট রাজা ধর জানান, গত কয়েক মাসে প্রায় পঁচিশ জন করোনা আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন যাঁদের ফুসফুসের রোগের পুরোনো কোনও ইতিহাস নেই। অথচ করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরে তাঁদের ফুসফুস বিকল হয়ে যায়।

মধ‍্য কলকাতার আর একটি বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক রাহুল জৈন জানান, করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজ়িটিভ আসলেই সব রকম পর্যবেক্ষণ জরুরি। অনেক কমবয়সী আক্রান্তেরা বিষয়টিকে কম গুরুত্ব দিচ্ছেন। এর ফল মারাত্মক হতে পারে। তাঁর কথায়, “আমরা করোনা সম্পর্কে যে তথ‍্য জানি, তার বাইরেও অনেক কিছু রয়েছে। করোনা ফুসফুসে প্রভাব ফেললে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। শেষ কয়েক মাসে এরকম একাধিক ঘটনা হয়েছে। রোগীর ফুসফুসের রোগের আগে কোনও ঘটনা না থাকলেও করোনার জেরে ফুসফুস বিকল হয়েছে। তাই প্রথম থেকেই সবরকম সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।”

করোনা কতখানি প্রভাব ফেলতে পারে, সুস্থ হয়ে ওঠার পরেও শরীরে ঠিক কতখানি ছাপ ফেলে এই ভাইরাস সে নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়েছে‌‌। তাই এমন বিষয় বাড়তি উৎকণ্ঠা তৈরি করছে বলেই মনে করছেন চিকিৎসকেরা।

কলকাতায় অক্টোবর-নভেম্বর উৎসবের মরসুম। এই সময়ে বাজি, ধোঁয়ার জেরে বাতাসে দূষণের মাত্রা বাড়ে। তাই মানুষের ফুসফুসের রোগ এই সময় বাড়তে থাকে। এই পরিস্থিতিতে আরও সচেতনতা জরুরি বলেই মত চিকিৎসকদের। তাঁরা জানাচ্ছেন, করোনা আবহে দূষণ কমানো জরুরি। করোনার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ফুসফুসের রোগ বাড়তে থাকলে মৃত্যুর সংখ‍্যা বাড়বে। অতিমারি আরও ভয়ানক রূপ নেবে। তাই মানুষ সচেতন না হলে কলকাতার জন‍্য আগামী দিনে আরও খারাপ সময় অপেক্ষা করছে বলেই আশঙ্কা চিকিৎসকদের একাংশের।

(ফিচার ছবিটি গুগল থেকে নেওয়া)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here