শুভদীপ ভট্টাচার্য ● বহরমপুর

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ এবং বারবার ঘোষণার পরেও মাদ্রাসাগুলি বাংলা শিক্ষা পোর্টালের অন্তর্ভুক্ত হয়নি। ফলে অনলাইন ক্লাসে স্কুল ও মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীদের পঠন-পাঠনের ধরনে বিরাট ফারাক সৃষ্টি হয়েছে। মুর্শিদাবাদের মাদ্রাসাগুলির এমন বেশ কিছু সমস্যা সমাধানের দাবিতে বুধবার জেলা শিক্ষা দফতর, সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও বিত্তনিগম বিভাগের জেলা আধিকারিকের কাছে স্মারকলিপি জমা দিল নিখিলবঙ্গ শিক্ষক সমিতি (এবিটিএ)।

ধুঁকতে থাকা মাদ্রাসার শিক্ষা-ব্যবস্থার হাল ফেরাতে অবিলম্বে শিক্ষক নিয়োগ, মাদ্রাসার বিরুদ্ধে কুৎসা বন্ধ-সহ মোট পনেরো দফা দাবিতে এ দিন বহরমপুরে জেলা শিক্ষা দফতরের সামনে সভা করে নিখিলবঙ্গ শিক্ষক সমিতি। ওই সংগঠনের দাবি, মাদ্রাসাগুলো বন্ধ থাকার ফলে বেড়েছে স্কুলছুট, শিশুশ্রম ও বাল্যবিবাহের সম্ভাবনা। ধীরে ধীরে সবকিছু খুলে গেলেও শিক্ষাঙ্গনের ফটকে পড়ুয়াদের জন্য এখনও তালা ঝোলানো রয়েছে। সামাজিক দূরত্ববিধি মেনেই স্কুলগুলি খোলা হোক।

সংগঠনের পক্ষে মুর্শিদা খাতুন বলেন, ‘‘মাদ্রাসা না খোলার জন্য বাল্যবিবাহ ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে, এমনকি কন্যাশ্রী যোদ্ধারাও কখনও কখনও পিছু হটতে বাধ্য হচ্ছে। শিক্ষকদের এরিয়ার দেওয়া হচ্ছে না। মাদ্রাসা শিক্ষাকেন্দ্রগুলিও ব্যাপক সমস্যার মুখে দাঁড়িয়ে। এর সমাধান হওয়া জরুরি।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here