তানিয়া বন্দ্যোপাধ্যায় পাল ● কলকাতা

করোনা অতিমারির শেষ যেন দেখা যাচ্ছে না। অতিমারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ভ‍্যাকসিন তৈরি হয়েছে। কিন্তু তারপরেও এই রোগের শক্তিক্ষয় নেই। বরং দিন দিন পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠছে।

সম্প্রতি ব্রিটেনের মেডিক্যাল অ‍্যাডভাইসরি চিফ জানিয়েছেন, আগামী কয়েক দিন খুব গুরুত্বপূর্ণ। একদিকে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হয়েছে। আর এক দিকে করোনা ভাইরাসের নতুন রূপ জাঁকিয়ে বসেছে। কয়েক গুণ বেশি সংক্রমণ ক্ষমতা নিয়ে সে থাবা বসাচ্ছে। তাই টিকার প্রভাব কী হবে, সেটা বুঝতে পারাও কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

সোমবার এই পরিস্থিতি নিয়ে ব্রিটেনের ন‍্যাশনাল হেলথ সার্ভিসকে সতর্ক করেছে প্রশাসন। পাশপাশি জানানো হয়েছে, নতুন চরিত্রের করোনাকে রুখতে বাড়তি সতর্কতা নিতে হবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, নতুন চরিত্রের করোনা শুধু ব্রিটেনে আটকে নেই। ভিয়েতনাম থেকে ভারত কিংবা ফ্রান্স, ইতালি হয়ে মধ‍্য এশিয়ার দেশগুলোতেও থাবা বসিয়েছে। তাই সব দেশেই সমান সতর্কতা জরুরি।

ভারতে ইতিমধ্যেই জনা তিরিশ ব্রিটেন ফেরত করোনা আক্রান্তের দেহে করোনা ভাইরাসের নতুন চরিত্র খুঁজে পাওয়া গিয়েছে। যদিও আইসিএমআর জানিয়েছে, নতুন চরিত্রের করোনায় আক্রান্ত সকলকেই আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। তবে, ভারতেও টিকাকরণের প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে রয়েছে। তাই এই সময়ে অতিমারির নতুন ঢেউ আছড়ে পড়লে পরিস্থিতি সামলানো মুশকিল হয়ে যাবে। কারণ, তখন টিকার কার্যকারিতা বিশ্লেষণ করা যাবে না। পাশপাশি কী ভাবে নতুন আক্রান্তদের সামলানো যাবে, সে নিয়েও জটিলতা তৈরি হতে পারে‌।

করোনা ভাইরাসের নতুন ধারার যেহেতু সংক্রমণ ক্ষমতা আগের তুলনায় প্রায় ৭০ শতাংশ বেশি, তাই বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, স্বাস্থ‍্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে কোনও রকম ত্রুটি চলবে না‌। টিকাকরণ প্রক্রিয়া শুরু হলেও সকলকে মাস্ক ব্যবহার করতেই হবে। সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলতে হবে। পাশাপাশি হাত পরিষ্কার রাখার অভ‍্যাস বজায় রাখতে হবে। সচেতনতায় যে কোনও রকম খামতি বড় বিপদ ডেকে আনতে পারে।

(ফিচার ছবি গুগল থেকে নেওয়া)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here