নিজস্ব সংবাদদাতা ● সাগরদিঘি

তক্কে তক্কেই ছিলেন দুই যুবক। কিন্তু শেষরক্ষা হল না!

বেশ কয়েক মাস বিরতির পরে মুর্শিদাবাদে পাচারের তালিকায় ফের উঠে এল তক্ষক (পোশাকি নাম টোকে গেকো)। মঙ্গলবার বিকেলে সাগরদিঘি থেকে তক্ষক পাচারের অভিযোগে দুই যুবককে গ্রেফতার করল পুলিশ। ধৃত বিষ্ণু সরকার ও চন্দন অধিকারী নতুন মালঞ্চ ও তারাপুরের বাসিন্দা। বুধবার তাঁদের জঙ্গিপুর আদালতে হাজির করানো হলে বিচারক পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন।

পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার বিকেলে তক্ষকটিকে একটি ছোট ব্যাগে ভরে শমসেরগঞ্জ থেকে সাগরদিঘিতে নিয়ে আসেন ওই দুই যুবক। সেখানেই তক্ষকটি নিতে আসার কথা ছিল দু’জনের। তবে আগাম খবর পেয়ে পুলিশও হাজির হয়ে গিয়েছিল সাগরদিঘিতে। ব্যাগ হাতে ওই দুই যুবককে দেখার পরেই পুলিশ তাঁদের আটক করে। ব্যাগ থেকে চারশো গ্রাম ওজনের, ধূসর রঙের ১৪ ইঞ্চি লম্বা তক্ষকটিকে উদ্ধার করা হয়।

জেরায় ধৃত দুই যুবক পুলিশকে জানান, শমসেরগঞ্জের একটি জঙ্গল থেকে এই তক্ষকটিকে তাঁরা পেয়েছেন। তক্ষকের অনেক দাম বলে তাঁরা টাকার লোভেই সেটি নিয়ে সাগরদিঘিতে আসেন। তবে পুলিশের সন্দেহ, তক্ষকটিকে মায়ানমার থেকে বাংলাদেশ হয়ে কালিয়াচকে আনা হয়েছিল। দু’জন ক্রেতার তা কেনার কথা ছিল। সেই কারণেই তক্ষকটিকে আনা হয়েছিল সাগরদিঘিতে।

জঙ্গিপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সন্দীপ কারা বুধবার সাংবাদিক বৈঠক করে জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে টোকে গেকোর চাহিদা আছে। দাম অনেক বেশি বলে গেকো বেচাকেনার বহু প্রতারণার চক্রও রয়েছে। পুলিশ পুরো ঘটনাটাই তদন্ত করে দেখছে। এই ঘটনার সঙ্গে কোনও চক্রের যোগ আছে কিনা, সাগরদিঘিতে কাদের ওই গেকো কেনার কথা ছিল ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সবটাই জানার চেষ্টা চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here