শুভদীপ ভট্টাচার্য ● বহরমপুর

দিনভর মা-মাটি-মানুষের বৃত্তেই যেন ঘুরপাক খেলেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার বহরমপুরে স্টেডিয়ামের সভামঞ্চে মমতার মুখে ঘুরেফিরে এল মানুষের কথা। অনেকটা সময় নিয়েই বললেন মায়েদের কথা। আর মাটির কথা তো তার আগে বর্ধমানে মাটি উৎসবে বলেই এসেছেন। এ দিনের জনসভায় তিনি মেহনতি মানুষের কথা বলেছেন, কৃষকের কথা বলেছেন। তেমনই মায়েদের সম্মান না করলে কারও তৃণমূলে যে ঠাঁই নেই সে কথাও স্পষ্ট ভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন। এ দিন দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে মমতা বলেন, “তৃণমূল করতে হলে প্রথম কাজ হল, মা-বোনেদের মাথায় রাখতে হবে। মাকে আগে সম্মান করতে হবে। মা-বোনেদের ভাল রাখতে হবে। যে সমাজে মহিলারা ভাল থাকেন, সেই সমাজও ভাল থাকে।”

তাঁর সরকার ‘মা-বোন’দের কতটা ভাল রেখেছে তা বোঝাতে গিয়ে তিনি কন‌্যাশ্রী, রূপশ্রী, বিধবা ভাতা-সহ একগুচ্ছ প্রকল্পের সাফল্যর খতিয়ান তুলে ধরেছেন। মমতা বলেন, ”মা বোনেরা সেমুই, পায়েস, বিরিয়ানি কেমন বানায় বলুন? দুর্গাপুজোয় প‌্যান্ডেলে প‌্যান্ডেলে গিয়ে রান্নার কাজ করেন। অসুখ করলে মাথায় জলপট্টি দেন। মায়ের ছোঁয়ায় সব রোগ ভাল হয়ে যায়। এই হচ্ছে আমাদের মা, মাদার, আম্মা।” এরপরে সভামঞ্চের সামনের সারিতে মহিলাদের উদ্দেশে প্রশ্ন ছুড়ে দেন মমতা, “মুর্শিদাবাদের মা-বোনেরা বলুন তো, আপনারা রাস্তায় ঘুরে বেড়ান তো? আপনাদের কি বাইরে গেলে রাস্তায় কাউকে পাহারা দিয়ে নিয়ে যেতে হয়? মা-বোনেরা নিজেরা বাজারহাট করেন তো? তা হলে বুঝুন, মা-বোনেরা ছাড়া কোনও কাজ হয় না।”

এরপর বিজেপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, “বাংলায় মা-বোনেদের যে সম্মান আছে তা আর কোথাও নেই। এখানে মা-বোনেদের যে শান্তি আছে তা আর কোথাও নেই। চলে যান বিজেপি শাসিত রাজ্যে, সেখানে দেখবেন সংখ‌্যালঘু, দলিতদের উপর কী ভাবে অত‌্যাচার চলছে। আমাদের বাংলার মতো সম্মান আর কেউ করবে না।” যদিও মমতার এ দিনের বক্তব্যের পরে বিরোধীদের কটাক্ষ, ‘‘পার্কস্ট্রিট, কামদুনি বুঝি এই বাংলার বাইরের কোনও রাজ্যে অবস্থিত? নাকি মুখ্যমন্ত্রী সে সব ঘটনা ভুলে গিয়েছেন?’’

ছবিটি তুলেছেন ইন্দ্রাশিস বাগচী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here