শান্তনু পান ● পশ্চিম মেদিনীপুর

দুয়ারে সরকার এসেছিল। কিন্তু অসুস্থতার কারণে তিনি বাড়ি থেকেই বের হতে পারেননি। মেলেনি স্বাস্থ্যসাথীর কার্ডও। এ দিকে, চিকিৎসার জন্য খরচ করতে করতে নিঃস্ব হতে বসেছেন মেদিনীপুর শহরের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা কৃষ্ণা জানা। বিষয়টি জানতে পারেন এলাকার প্রাক্তন কাউন্সিলর মৌ রায়। তাঁরই উদ্যোগে সোমবার বাড়িতে বসেই স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড হাতে পেলেন কৃষ্ণা জানা।
গত কয়েক মাস ধরে কৃষ্ণা যকৃতের অসুখে ভুগছেন। ইতিমধ্যে তাঁর চিকিৎসার জন্য বহু টাকা খরচ হয়ে গিয়েছে। এরপরে কী ভাবে চিকিৎসা চলবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন জানা পরিবারের সদস্যরা। বিষয়টি জানার পরে এক মুহূর্ত দেরি করেননি প্রাক্তন কাউন্সিলার মৌ রায়। তিনি বিষয়টি মেদিনীপুর পুরসভার সংশ্লিষ্ট আধিকারিককে জানান এবং দ্রুত ওই মহিলাকে একটি স্বাস্থ্যসাথী কার্ড করে দেওয়ার আবেদন জানান।
মৌ রায়ের আবেদনে সাড়া দিয়ে সোমবার কৃষ্ণা জানার বাড়িতে গিয়ে তাঁর হাতে স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড তুলে দেন মেদিনীপুর পুরসভার আধিকারিক মানোয়ারা বেগম ও সোমনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়। ‘স্বাস্থ্যসাথী’র কার্ড হাতে পেয়ে খুশি কৃষ্ণা জানার পরিবার। তাঁরা প্রাক্তন কাউন্সিলর ও পুরসভাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। প্রাক্তন কাউন্সিলর মৌ রায় বলেন, “অসহায় পরিবারের কাছে দিদির স্বপ্নের প্রকল্পটি দ্রুত পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করেছি। পুরসভার আধিকারিকেরা সাহায্য না করলে এটা সম্ভব হত না।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here