নিজস্ব সংবাদদাতা ● বহরমপুর

শুক্রবার তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হওয়ার কথা। বহরমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে দলের প্রার্থী হতে পারেন শহর তৃণমূলের সভাপতি নাড়ুগোপাল মুখোপাধ্যায়, এমন জল্পনা চলছিলই। এ দিকে প্রার্থী তালিকা ঘোষণার ঠিক আগের দিন নাড়ুগোপালের নেতৃত্বে জনসভার আয়োজন সেই জল্পনা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। বৃহস্পতিবার বহরমপুরের দশমুণ্ড কালীমাঠের ওই জনসভার দলের সব স্তরের নেতারা উপস্থিত থাকবেন।
আপনি কি তা হলে নিশ্চিত ভাবেই বহরমপুরে প্রার্থী হচ্ছেন? নাড়ুগোপাল মুখোপাধ্যায় অবশ্য বলছেন, “আমি দলের কর্মী মাত্র। দলই ঠিক করবে কে, কোথায় থেকে লড়াই করবে। প্রার্থী যেই হোক না কেন, আসলে প্রার্থী তো মমতা বন্দ‌্যোপাধ‌্যায়। আমি কেবল তাঁর সৈনিক।”
বহরমপুর অধীর গড় বলে পরিচিত। গত লোকসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্র থেকে বিপুল ভোটে ‘লিড’ পেয়েছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। এমন আসনে শুধু নাড়ুগোপাল নয়, আরও অনেকেই প্রার্থী হতে চেয়ে আবেদন করেছেন। তৃণমূল সূত্রের খবর, বহরমপুরে লড়াই করার জন্য অন্ততপক্ষে পাঁচজন নেতা-কর্মী প্রার্থী হতে চেয়ে বায়োডাটা জমা দিয়েছেন। জেলা তৃণমূলের তরফে একটি তালিকা প্রস্তুত করেও পাঠানো হয়েছে তৃণমূল সুপ্রিমোর কাছে। পাশাপাশি তালিকা জমা দিয়েছে টিম পিকে-ও। কোন তালিকা প্রাধান‌্য পাবে তা সময়ই বলবে।
বৃহস্পতিবার বহরমপুর শহরের জনসভার আয়োজন করা হয়েছে বহরমপুর শহর তৃণমূলের পক্ষে। শহরের ২৮টি ওয়ার্ড থেকে ব‌্যাপক জমায়েতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ওয়ার্ড কমিটিগুলিকেও। বুথ ধরে ধরে চলছে প্রচার। প্রতিটি ওয়ার্ডে ঠিক করে দেওয়া হয়েছে জমায়েতের লক্ষ‌্যমাত্রা। ওয়ার্ডভিত্তিক পাঁচশো জন করে জমায়েতের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দেওয়া হয়েছে।
নাড়ুগোপাল মুখোপাধ্যায় প্রার্থী হবেন এই আশায় শহর তৃণমূলের কর্মীরা খামতি কোথায়, কোন ওয়ার্ডে লিড কম হওয়ার সম্ভাবনা, কোথায় কতটুকু জোর দেওয়া প্রয়োজন তার নোট নেওয়া শুরু করেছেন। গ্রামীণ এলাকা, শহর এলাকার জন‌্য আলাদা স্ট্র্যাটেজি ঠিক করা হচ্ছে। তৃণমূল নেতা-কর্মীদের একাংশের দাবি, ‘‘দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে নাড়ুগোপাল দলের শহর সভাপতি পদে রয়েছেন। তাঁর জনসংযোগও তারিফ করার মতো। তরুণ নেতা হিসেবে প্রার্থীর দৌড়ে নাড়ুগোপাল অন্যদের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন।’’