শঙ্কর মণ্ডল ● করিমপুর

মে দিবসে লাল পতাকাটা তাঁরই উত্তোলন করার কথা ছিল। কিন্তু সেটা আর হল না। শনিবার সেই লাল পতাকা গায়ে জড়িয়েই চির বিদায় নিলেন সিপিএমের নদিয়া জেলা কমিটি তথা করিমপুর ১ এরিয়া সাংগঠনিক কমিটির সদস্য অজয় বিশ্বাস (৬৮)। শুক্রবার সন্ধ্যায় উচ্চ রক্তচাপ ও বুকে ব্যথার কারণে তাঁকে করিমপুর গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পরে সুস্থ হয়ে তিনি বাড়ি ফেরেন। শনিবার তাঁর মালিয়ানতলার বাড়ির সামনে প্রাতঃভ্রমণের সময় হৃদরোগে আক্রান্ত হন। সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়।
পারিবারিক সূত্রে জানা গিয়েছে, বেশ কয়েক বছর ধরেই তিনি সুগার, হাই প্রেশারে ভুগছিলেন। রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণের জন্য তাঁকে প্রতিদিন নিয়ম করে দু’বেলা ইনসুলিন নিতে হত। অকৃতদার এই নেতার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। এলাকাবাসী ও দলের কর্মীদের শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য তাঁর দেহ শনিবার সকাল সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মালিয়ানতলা গ্রামে তাঁর নিজের বাড়িতে এবং ১১টা ৪০ থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত দলের করিমপুর ১ এরিয়া সাংগঠনিক কমিটির অফিস দীনেশ স্মৃতি ভবনে রাখা হয়। তাঁকে শ্রদ্ধা জানান সিপিএমের রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য তথা নদিয়া জেলা কমিটির সম্পাদক সুমিত দে, জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য এসএম সাদি, মানস মণ্ডল-সহ করিমপুর ১ ও ২ এরিয়া কমিটির সদস্যেরা। করোনা পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে সমস্ত রকম সতর্কতামূলক কোভিড-বিধি মেনে পাট্টাবুকা শ্মশানে অজয়বাবুর শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।
ছয় ভাই ও দুই বোনের সবার বড় অজয় বিশ্বাস আজন্ম বাম রাজনীতিতে বিশ্বাসী ছিলেন। মূলত কৃষক আন্দোলনের মধ্য দিয়েই তাঁর মূল পার্টিতে আসা। ১৯৭৭ সালে তিনি সিপিএমের প্রাথমিক সদস্যপদ লাভ করেন। ১৯৮৭ সালে দলের অবিভক্ত করিমপুর লোকাল কমিটির সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরে করিমপুর জোনাল কমিটি গঠিত হলে তিনি ওই কমিটির সদস্য হন। ১৯৯২ সাল থেকে আমৃত্যু সিপিএমের নদিয়া কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৯৬ সাল থেকে প্রায় সাড়ে সাত বছর জোনাল কমিটির সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। পার্টির দায়িত্ব সামলানোর পাশাপাশি ১৯৮৩ থেকে ১৯৮৮ পর্যন্ত করিমপুর ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ও ১৯৮৬ থেকে ১৯৯০ পর্যন্ত করিমপুর জগন্নাথ উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতির সদস্য ছিলেন।
সিপিএম নদিয়া জেলা কমিটি ও করিমপুর ১ এরিয়া সাংগঠনিক কমিটির সদস্য আশাদুল খাঁ তাঁর শোকবার্তায় বলেন, ‘‘অজয় বিশ্বাসের মৃত্যুতে এলাকার বাম আন্দোলনের যথেষ্ট ক্ষতি হল।’’ সিপিএমের করিমপুর ১ এরিয়া কমিটির আহ্বায়ক সন্দীপক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘অজয় বিশ্বাস ছিলেন তরুণ প্রজন্মের বাম নেতাদের অভিভাবক। তাঁর মৃত্যুতে বাম আন্দোলনের অপূরণীয় ক্ষতি হল।”