শুভদীপ ভট্টাচার্য বহরমপুর

কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিরক্ষা দফতরের ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও) মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একটি অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরি করছে। আর এই একটি মাত্র অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরির কৃতিত্বের দাবি জানাচ্ছে কংগ্রেস, তৃণমূল এবং বিজেপি। যুযুধান তিন শিবিরই দাবি করেছে, কৃতিত্বের যাবতীয় প্রাপ্য কেবল তাদেরই।
কংগ্রেসের দাবি, বহরমপুরের সাংসদ অধীর চৌধুরী তাঁর এলাকা উন্নয়ন তহবিলের টাকায় অক্সিজেন প্ল‌্যান্ট গড়ে তুলতে ও অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলান্স কিনতে চেয়ে মুখ‌্যমন্ত্রীকে চিঠি লেখেন। একইসঙ্গে ওই দাবিতেই জেলাশাসককেও চিঠি লেখেন তিনি। প্রায় একই সঙ্গে অধীর চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে বহরমপুরে ডিআরডিওর তত্ত্বাবধানে ৫০০ শয্যার একটি হাসপাতাল নির্মাণের দাবি করেন। এরপর দিন দশেক আগে সিবিআই-এর ডিরেক্টর নিয়োগ সংক্রান্ত একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে যান অধীর চৌধুরী। সেখানে প্রধানমন্ত্রীকে একান্তে পেয়ে ডিআরডিও এর তত্ত্বাবধানে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে একটি অক্সিজেন প্ল্যান্ট ও একটি পাঁচশো শয‌্যাবিশিষ্ট অত‌্যাধুনিক করোনা হাসপাতাল তৈরির প্রস্তাব কার্যকর করার জন্য অধীর চৌধুরী অনুরোধ করেন। তখন প্রধানমন্ত্রীর তরফেও সবুজ সঙ্কেত দেওয়া হয়। অবশেষে গত মঙ্গলবার অক্সিজেন প্ল‌্যান্ট নির্মাণ কাজ শুরু হয় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হয়, “অধীরের প্রস্তাবেই হল মুশকিল আসান প্রকল্প। প্রধানমন্ত্রীর কাছে অধীর চৌধুরীর আবেদনের কারণেই অক্সিজেন প্ল‌্যান্ট স্থাপনের অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্র সরকার।”
বুধবারেই ওই ঘটনার সূত্র ধরে একটি সাংবাদিক সম্মেলন করেন কান্দির বিধায়ক ও জেলা তৃণমূলের মুখপাত্র অপূর্ব সরকার। তিনি দাবি করেন, “এই কৃতিত্ব বিন্দুমাত্রও অধীরের নয়। বরং কৃতিত্ব যতটুকু রয়েছে তা মুখ‌্যমন্ত্রী মমতা বন্দ‌্যোপাধ‌্যায়ের।’’ অপূর্বের আরও দাবি, প্রায় একমাস আগেই রাজ‌্যজুড়ে ৭০টি অক্সিজেন প্ল‌্যান্ট বসানোর জন‌্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন মুখ‌্যমন্ত্রী। এ দিন কেন্দ্রীয় সরকার তাতেই ছাড়পত্র দিয়েছেন।” অপূর্ব বলেন, “কেন্দ্র সরকার জানিয়েছে এর ব‌্যবস্থাপনা করবে ডিআরডিও এবং ন্যাশনাল হাইওয়ে অথরিটি অব ইন্ডিয়া।” অপূর্বের সংযোজন, “৭০টি অক্সিজেন প্ল‌্যান্ট প্রতিস্থাপনের ছাড়পত্র কেন্দ্রীয় সরকার দিয়েছে। এরমধ‌্যে মুর্শিদাবাদে ৫টি প্ল‌্যান্ট বসানো হবে। অধীর চৌধুরী কেবল একটির জন‌্যই আবেদন করেছিলেন, ৭০টিই তো অনুমোদিত হয়েছে। তাই কৃতিত্ব মমতা বন্দ‌্যোপাধ‌্যায়েরই। অধীর চৌধুরী মিথ‌্যা প্রচার করছেন।”
তবে কংগ্রেস ও তৃণমূলের আকচাআকচির মাঝে হাজির হয়েছে বিজেপিও। বহরমপুর কেন্দ্রের বিজেপির বিধায়ক সুব্রত মৈত্র (কাঞ্চন) বলেন, “অক্সিজেন প্ল‌্যান্ট নির্মাণের আর্থিক অনুদান দিচ্ছে পিএম কেয়ার্স তহবিল। নির্মাণের দায়িত্ব ন‌্যস্ত রয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থার উপর। এক্ষেত্রে কৃতিত্ব যতটুকু রয়েছে তা কেবল প্রধানমন্ত্রীর। অন‌্যেরা মিথ‌্যা কৃতিত্ব দাবি করছেন।”

(ফিচার ছবি গুগল থেকে নেওয়া)