রাজা বাগচী

অবশেষে অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন হল মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। মঙ্গলবার দুপুরে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দ্বিতীয় ক্যাম্পাস মাতৃসদনে দু’টি অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন হয়েছে। করোনায় মৃত মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ সন্দীপন মণ্ডলের স্ত্রী অবন্তিকা মার্জিত এই দু’টি অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন করেছেন।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মুর্শিদাবাদের অতিরিক্ত জেলাশাসক (জেলা পরিষদ) শুভাশিস বেজ, মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অমিত দা, এমএসভিপি অমিয়কুমার বেরা, মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রশান্ত বিশ্বাস, আইএমএ-র সম্পাদক রঞ্জন ভট্টাচার্য।
মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক এ দিন বলেন, “করোনা চিকিৎসায় অক্সিজেনের গুরুত্ব অপরিসীম। এত দিন কল্যাণী, হাওড়া বা কলকাতা থেকে সিলিন্ডারে করে অক্সিজেন এনে কাজ চালানো হত। এই দু’টি প্ল্যান্ট চালু হওয়ায় আর বাইরের অক্সিজেনের জন্য নির্ভর করতে হবে না।”
এমএসভিপি বলেন, “শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ সন্দীপন মণ্ডল করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। তাঁর স্মরণে তাঁর স্ত্রীকে দিয়ে এ দিন অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন করা হল।” তাঁর দাবি, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে রোগী সংখ্যা বাড়লেও মুর্শিদাবাদ মেডিক্যালে শয্যা বা অক্সিজেনের কোনও সমস্যা হয়নি। আগামীতে তৃতীয় ঢেউ এলে তা সামাল দিতে অক্সিজেন ও শয্যার ব্যবস্থা করা হল।”
সূত্রের খবর, সম্প্রতি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি তথা বহরমপুরের সাংসদ  অধীর চৌধুরি এই অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরির জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি পাঠিয়েছিলেন। একাধিকবার দরবার করার পরে কিছুদিন আগে ডিআরডিও-র উদ্যোগে বহরমপুরে এসে পৌঁছয় অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরির যাবতীয় সরঞ্জাম। তারপর থেকে জোর কদমে শুরু হয় অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরির কাজ।
অন্য দিকে, রাজ্য সরকার লিক্যুইড অক্সিজেন প্ল্যান্টের অনুমোদন দিয়েছিল। সেটির কাজও শেষ হয়েছে। অন্য কারখানা থেকে গাড়ি করে অক্সিজেন এনে গচ্ছিত রেখে হাসপাতালে সরবরাহ করা হবে। দু’ধরনের প্ল্যান্ট একই হাসপাতালে থাকায় আর কোনও সমস্যা হবে না বলে জানিয়েছেন এমএসভিপি।
এ দিন অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন করে অবন্তিকা মার্জিত বলেন, “মেডিক্যাল কলেজ এ ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছে। এর ফলে জেলাবাসীর উপকার হবে। আগামী দিনে অক্সিজেন নিয়ে কোনও সমস্যা হবে না বলে আমি আশাবাদী।”